কে হচ্ছেন ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি !

প্রচ্ছদ » আর্ন্তজাতিক » কে হচ্ছেন ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি !

পুঁজিবাজার রিপোর্ট ডেস্ক : আজ বিকেল ৫টার পর জানা যাবে ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতির নাম। কে হচ্ছেন বিদায়ী রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির উত্তরসূরি, রাম নাথ কোবিন্দ নাকি মিরা কুমার- আর কয়েক ঘণ্টা পর সেই অপেক্ষার সমাপ্তি হতে চলেছে।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে ভোট গণনা শুরু হয়েছে, যা চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। এরপরই ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হবে। এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে জানা যাবে ভারতের ১৪তম নির্বাচিত রাষ্ট্রপতির নাম।

১৭ জুলাই রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে পার্লামেন্ট ও বিধানসভাগুলোতে ভোট গ্রহণ করা হয়। এবার প্রায় ৯৯ শতাংশ ভোট পড়েছে। ভারতে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে ভোট দিতে পারেন লোকসভা, রাজ্যসভা ও সব বিধানসভার সদস্য এবং কেন্দ্র সরকারের অধীনে থাকা নয়াদিল্লি ও পডুচেরির প্রতিনিধিরা।

রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের ভোট গণনা হয় পার্লামেন্টে। সব রাজ্যের বিধানসভা থেকে পার্লামেন্টে আসা সিলগালা করা ব্যালট বাক্স বেলা ১১টায় খোলা হয়েছে এবং গণনা চলছে। ভারতের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভার মহাসচিব অরুপ মিশ্রের তত্ত্বাবধায়নে চারটি টেবিলে ভোট গণনা হচ্ছে। তিনি এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তার নজরদারিতে একইভাবে আট দফায় ভোট গণনার পর ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আগাম হিসাব-নিকাষ থেকে পূর্বাভাস পাওয়া যাচ্ছে, রাম নাথ কোবিন্দই হতে চলেছেন রাইসিনা হিলসের রাষ্ট্রপতি ভবনের নতুন অধিপতি।

বিহারের প্রাক্তন গভর্নর কোবিন্দ ক্ষমতাসীন বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের সমর্থন নিয়ে নির্বাচন করছেন। এনডিএ জোটসহ ৪০টির বেশি রাজনৈতিক দল তাকে সমর্থন করেছে। এ ছাড়া বিহারের নীতিশ কুমারের জনতা দল (ইউ) কংগ্রেসের দীর্ঘদিনের বন্ধু হলেও এবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তিনি বিজেপি-সমর্থিত কোবিন্দকে সমর্থন করেছেন। ফলে ভোটের হিসাব-নিকাষে পেছনে পড়ে গেছেন কোবিন্দের প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসসহ সম্মিলিত বিরোধী জোটের প্রার্থী প্রাক্তন স্পিকার মিরা কুমার।

সোমবার ভারতজুড়ে পার্লামেন্টে একটিসহ ৩২টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তার তথ্যমতে, এবার রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে, যা প্রায় ৯৯ শতাংশ।

নির্বাচনে মোট ভোটার ৪ হাজার ৮৯৫টি। এর মধ্যে বিধানসভার সদস্য (এমএলএ) ৪ হাজার ১২০ জন এবং সংসদ সদস্য ৭৭৬ জন। অর্থ গ্রহণসংক্রান্ত অভিযোগে নির্বাচন কমিশন অযোগ্য ঘোষণা করায় মধ্যপ্রদেশের মন্ত্রী নারোটাম মিশ্র ভোট দিতে পারেননি।

ভোটের হিসাব-নিকাষ
ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটের মাধ্যমে ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। ইলেক্টোরাল কলেজ গঠিত হয় পার্লামেন্টের সব সদস্য (লোকসভা) ও সব রাজ্যের বিধানসভার সদস্যদের নিয়ে। কেন্দ্র সরকারের অধীনে থাকা দিল্লি ও পডুচেরির আইনপ্রণেতারাও ইলেক্টোরাল কলেজের সদস্য।

রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনে মোট ভোটার ৪ হাজার ৮৯৬ জন। এর মধ্যে ৪ হাজার ১২০ জন বিধায়ক ও ৭৭৬ জন লোকসভা অর্থাৎ পার্লামেন্টের সদস্য। কিন্তু ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট ১০ লাখ ৯৮ হাজার ৯০৩টি। কীভাবে এই হিসাব করা হয়? ভেঙে বললে, ভারতের ৭৭৬ জন সংসদ সদস্য প্রত্যেকে ৭০৮টি ভোটের প্রতিনিধিত্ব করেন। এই হিসাবে ইলেক্টোরাল কলেজে সংসদ সদস্যদের প্রতিনিধিত্ব করা মোট ভোট ৫ লাখ, ৪৯ হাজার ৪০৮টি। ইলেক্টোরাল কলেজের বাকি ৫ লাখ ৪৯ হাজার ৪৯৫টি ভোট বিধানসভার সদস্যরা নিজ নিজ আসনে কে কত জনসংখ্যার প্রতিনিধিত্ব করছেন, সে অনুপাতে ভাগ করে দেওয়া হয়। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার জন্য কোনো প্রার্থীর প্রয়োজন ৫ লাখ ৪৯ হাজার ৪৫২টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট, যা মোট ভোটের অর্ধেকের বেশি।

এবার রাষ্ট্রপতি পদে দুই প্রার্থীই দলিত সম্প্রদায়ের মানুষ। বৃহৎ অর্থে নিম্নবর্ণের হিন্দু ও সংখ্যালঘুরাই ভারতে দলিত সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত। তুলনামূলক অনগ্রসর এই সম্প্রদায় থেকে উঠে আসা রাম নাথ কোবিন্দ যদি জয়ী হন, তাহলে তিনি হবেন ভারতের দ্বিতীয় দলিত রাষ্ট্রপতি। ভারতের প্রথম দলিত রাষ্ট্রপতি হলেন কেআর নারায়নান।

কোবিন্দ বা মিরা কুমার চূড়ান্তভাবে যিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবেন, তিনি ২৫ জুলাই শপথ গ্রহণ করবেন।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভি অনলাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Live Video

সম্পাদকীয়

অনুসন্ধানী

বিনিয়োগকারীর কথা

আর্কাইভস

August ২০২১
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
« Jul    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১