পুঁজিবাজার রিপোর্ট ডেস্ক : সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ সূচকের পতন দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। টানা সাত কার্যদিবসের বাজার পতনে হতাশ হয়ে পড়েছেন বিনিয়োগকারীরা। দু’একদিন বাজার ভালো থাকলেও আবার মন্দার চিত্রে ফিরে যাচ্ছে।

গত ৬ কার্যদিবসের মতো আজো ডিএসই সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন শুরুতে মিশ্র প্রবণতা থাকলেও ৪০ মিনিট পর ৭ খাতের সেল প্রেসারে নামতে থাকে সূচক। এবং শেষ দিকে এক বার ঘুঁড়ে দাঁড়ানের চেষ্টা করলেও ব্যাহত হয় বাজার। সোমবার লেনদেন শেষে সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশীরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। আর টাকার অংকে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কিছুটা কমেছে। আলোচিত সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৫৩৭ কোটি টাকা।

আজ ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৩২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫৪২৮ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২৫৯ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২০০২ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩২৬টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১১২টির, কমেছে ১৭২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪২টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৫৩৭ কোটি ৯৮ লাখ ৭১ হাজার টাকা।

এর আগের কার্যদিবস অর্থাৎ রোববার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৩৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৫৪৬০ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২৬৮ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২০১৭ পয়েন্টে। আর ওইদিন লেনদেন হয়েছিল ৫৫০ কোটি ১০ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ১২ কোটি ১২ লাখ ৩ হাজার টাকা।

এদিকে, দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ব্রড ইনডেক্স ৫৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১০ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৩৮টি কোম্পানির ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৯টির, কমেছে ১৩৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ২৯ কোটি ১ লাখ ১৬ হাজার টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Live Video

সম্পাদকীয়

অনুসন্ধানী

বিনিয়োগকারীর কথা

আর্কাইভস

November ২০২০
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
« Oct    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০