তলিয়ে গেছে কক্সবাজার, দুর্ভোগে লাখো মানুষ

প্রচ্ছদ » জাতীয় » তলিয়ে গেছে কক্সবাজার, দুর্ভোগে লাখো মানুষ

কক্সবাজার প্রতিনিধি : দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না কক্সবাজারবাসীর। গত ৩০ মে ঘূর্ণিঝড় মোরা’র আঘাত থেকে উঠে দাঁড়ানোর আগেই আরেক মৌসুমি নিম্নচাপের প্রভাবে কক্সবাজারজুড়ে দমকা ও ঝড়োহাওয়া বইছে। গতকাল রোববার সকাল থেকে শুরু হওয়া থেমে থেমে বর্ষণ তলিয়ে গেছে শহর-গ্রামের রাস্তাঘাট, বাড়িঘর, ব্যবসা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। গাছপালা উপড়ে পড়েছে, উড়ে গেছে কাঁচা ঘরবাড়ির চাল। সাগরে স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়েছে জোয়ারের পানি। এতে প্লাবিত হচ্ছে উপকূলের গ্রামের পর গ্রাম। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছে কক্সবাজারের লাখো মানুষ।

ঝড়ো ও দমকা হাওয়ায় গাছপালা ভেঙে পড়ে বিচ্ছিন্ন রয়েছে বিদ্যুৎ যোগাযোগ। ফলে রোববার সন্ধ্যা থেকে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত জেলা শহর ছাড়া কক্সবাজারের বিশাল এলাকা অন্ধকারে রয়েছে। বিদ্যুতের অভাবে রোববার রাতে কক্সবাজার থেকে স্থানীয় কোনো পত্রিকা প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি।

অন্যদিকে ঝড়োহাওয়ার কবলে পড়ে সাগরের কক্সবাজার উপকূলে ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই জেলে নিখোঁজ হয়েছেন। এ ঘটনায় ভাসমান অবস্থায় ১২ জেলেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার ভোররাতে সৈকতের লাবণী পয়েন্টে এ ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে।

নিখোঁজরা হলেন ট্রলারের মাঝি বেলাল উদ্দিন (৪৫) ও তার সহযোগী জেলে লেমন রাখাইন (৪০)।

জেলেদের উদ্ধৃতি দিয়ে ট্রলারটির মালিক জসিম উদ্দিন জানান, আকস্মিক ঝড়োহাওয়ার কবলে কক্সবাজার উপূলের লাবণী পয়েন্ট চ্যানেলের গভীর সমুদ্রে ট্রলারটি ডুবে যায়। এতে মাঝিসহ দেই জেলে নিখোঁজ হন। বাকি ১২ জেলে ট্রলারের ভাঙা অংশ ধরে ভাসতে ভাসতে ডায়বেটিকস পয়েন্ট আসেন। তাদের স্থানীয় লোকজন মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে।

এরা হলেন- রবি দাস (৫০), মাকন দাস (৪৫), বিশ্বজিত দাস (২৮), লক্ষীপদ দাস (৪৫), ফিরুরা দাস (৩৮), নেপাল দাস(২৫), চরন দাস (২৪), সুদীর দাস (৩০), তুফান দাসসহ (৫০) আরও দুজন। তারা সবাই চকরিয়ার পহরচাঁদার বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

কক্সবাজার ফিশিংবোট মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমদ জানান, ইতোমধ্যে ১২ জেলে কূলে ফিরে এসেছে। বাকি দুজনকে উদ্ধারে নৌ-বাহিনী ও জেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ একেএম নাজমুল হক জানান, রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার বেলা ৩টা পর্যন্ত ২১ ঘণ্টায় জেলায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে ১২১ মিলিমিটার। মৌসুমি নিম্নচাপের কারণে সাগর উত্তাল রয়েছে। রোববার সকাল থেকে থেমে থেমে ঘণ্টায় ৫০-৬০ কিলোমিটার বেগে দমকা ও ঝড়োহাওয়া বইছে। পূর্ণিমা তিথি ও বাতাসের কারণে সাগরে স্বাভাবিকের চেয়ে জোয়ারের পানি বাড়ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Live Video

সম্পাদকীয়

অনুসন্ধানী

বিনিয়োগকারীর কথা

আর্কাইভস

November ২০২০
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
« Oct    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০