প্রোটিয়াদের বিদায় করে সেমিতে ভারত

প্রচ্ছদ » খেলা » প্রোটিয়াদের বিদায় করে সেমিতে ভারত

পুঁজিবাজার রিপোর্ট ডেস্ক : চ্যাম্পিয়নস ট্রফির অলিখিত কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ন্যূনতম প্রতিদ্বন্দ্বিতাও করতে পারল না দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়াদের ১৯১ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পর ৮ উইকেটের বড় জয়ে সেমিফাইনালে উঠেছে ভারত।

এই হারে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল দক্ষিণ আফ্রিকা। ‘বি’ গ্রুপ থেকে প্রথম দল হিসেবে সেমিফাইনালে উঠল ভারত। সোমবার শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান ম্যাচের জয়ী দল হবে এই গ্রুপের আরেক সেমিফাইনালিস্ট।

কেনিংটন ওভালে রোববার ছোট লক্ষ্য তাড়ায় ভারতের শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি। প্রথম দুই ম্যাচে শতরানের উদ্বোধনী জুটি হলেও এদিন দলের ২৩ রানেই মরনে মরকেলের বলে কুইন্টন ডি কককে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রোহিত শর্মা (১২)।

এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ১২৮ রানের বড় জুটি গড়ে দলকে এগিয়ে নেন শিখর ধাওয়ান ও অধিনায়ক কোহলি। প্রথম দুই ম্যাচে ৬৮ ও ১২৮ রান করা ধাওয়ান এদিনও তুলে নেন ফিফটি।

তার সামনে সুযোগ ছিল টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরির। তবে ৭৮ রানে ইমরান তাহিরের বল উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং-অফে ফাফ ডু প্লেসিকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ৮৩ বলে ১২ চার ও এক ছক্কায় ইনিংসটি সাজান তিনি।

ধাওয়ানের বিদায়ের সময় ভারতের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৪১ রান। তার বিদায়ের আগেই ফিফটি তুলে নেওয়া কোহলি যুবরাজ সিংকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন।

ভারত ম্যাচ জিতেছে ৭২ বল হাতে রেখেই। ১০১ বলে ৭ চার ও এক ছক্কায় ৭৬ রানে অপরাজিত ছিলেন কোহলি। ২৫ বলে ২৩ রানে অপরাজিত ছিলেন যুবরাজ।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দারুণ সূচনা পেয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু শুরুর ছন্দটা ধরে রাখতে পারেনি। তিন রানআউটে ৫১ রানে শেষ ৮ উইকেট হারিয়ে প্রোটিয়াদের ইনিংস গুটিয়ে গেছে যায় ১৯১ রানেই।

দুই ওপেনার কুইন্টন ডি কক ও হাশিম আমলা গড়েছিলেন ৭৬ রানের উদ্বোধনী জুটি। ভারতীয় দলে ফেরা স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে আমলা (৩৫) মহেন্দ্র সিং ধোনিকে ক্যাচ দিলে ভাঙে এ জুটি।

আরেক ওপেনার ডিক কক তুলে নিয়েছিলেন ফিফটি। কিন্তু ইনিংস বড় করতে পারেননি। রবীন্দ্র জাদেজার বলে বোল্ড হওয়ার আগে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান করেন ৫৩ রান।

প্রথম দুই ম্যাচ মিলিয়ে ৪ রান করে অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স এদিনও বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ। রানআউটে কাটা পড়ার আগে এবি করেন ১৬। তার বিদায়ের পরের ওভারে ডু প্লেসির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হয়ে ফেরেন ডেভিড মিলারও।

টানা দুই ওভারে দলের দুই ব্যাটিং স্তম্ভ রানআউটে কাটা পড়াতেই সর্বনাশ হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার। দলের ১৫৭ রানে ডু প্লেসি (৩৬) আউট হওয়ার পরই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে প্রোটিয়াদের ব্যাটিং লাইনআপ।

জেপি ডুমিনি একপ্রান্ত আগলে রাখলেও ৪৪.৩ ওভারে ১৯১ রানেই অলআউট হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ডুমিনি অপরাজিত ছিলেন ২০ রানে।

ভারতের হয়ে পেসার ভুবনেশ্বর কুমার ও জাসপ্রীত বুমরাহ ২টি করে উইকেট নেন। অশ্বিন, জাদেজা ও হার্দিক পান্ডিয়ার ঝুলিতে জমা পড়ে একটি করে উইকেট।

দারুণ বোলিং আর ফিল্ডিংয়ের পর ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় সহজেই সেমিফাইনালে উঠে গেল টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Live Video

সম্পাদকীয়

অনুসন্ধানী

বিনিয়োগকারীর কথা

আর্কাইভস

November ২০২০
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
« Oct    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০